1. admin@chunarughat24.com : admin :
ধর্ষণের শাস্তি মৃত্যুদণ্ডের সমালোচনায় জাতিসংঘ
বুধবার, ২১ এপ্রিল ২০২১, ০১:১২ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
ইসরায়েলের পার্লামেন্টারি কমিটির নির্বাচনে নেতানিয়াহুর পরাজয় বিশ্বের সোয়া ১৪ কোটি মানুষ করোনায় আক্রান্ত মিগুয়েল দিয়াজ ক্যানেল কিউবায় নতুন নেতা হিসেবে নির্বাচিত হলেন ফোর্বস ম্যাগাজিনে জায়গা পেলো বাংলাদেশী ৯ তরুণ ‘চিকিৎসক ও পুলিশের পাল্টাপাল্টি বিবৃতি কাম্য নয়’ ধান ৮০ শতাংশ পাকলেই কাটার তাগিদ দিয়েছে হবিগঞ্জ জেলা প্রশাসন সারাদেশের অধঃস্তন আদালতে ১০৬৮১ আসামীর জামিন চিকিৎসকের শব্দ অরুচিকর, ব্যবস্থা গ্রহণের দাবী জানালো পুলিশ সার্ভিস এসোসিয়েশন চট্টগ্রামে বিদ্যুৎকেন্দ্রে সংঘর্ষে শ্রমিক নিহতের ঘটনায় মামলা, তদন্ত কমিটি গঠন ‘কঠোর লকডাউন’ আরো এক সপ্তাহ বাড়ানোর সিদ্ধান্ত

ধর্ষণের শাস্তি মৃত্যুদণ্ডের সমালোচনায় জাতিসংঘ

রিমন মুক্তাদির
  • সময় : বুধবার, ২১ অক্টোবর, ২০২০
  • ১৪৫ বার পঠিত
ধর্ষণের শাস্তি মৃত্যুদণ্ডের সমালোচনায় জাতিসংঘ
ছবি। মিশেল বাচলেট।

রিমন মুক্তাদির।। ধর্ষণের সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদণ্ডের বিধান রেখে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনের যে খসড়া বাংলাদেশের মন্ত্রিসভায় চূড়ান্ত অনুমোদন পেয়েছে। তবে ধর্ষণের শাস্তি মৃত্যুদণ্ডের সমালোচনা করেছেন জাতিসংঘের মানবাধিকার বিষয়ক হাইকমিশনার মিশেল ব্যাচেলেট।

এক বিবৃতিতে মিশেল ব্যাচেলেট বলেন, ধর্ষণ ঘৃণ্য অপরাধ হলেও শাস্তি হিসেবে মৃত্যুদণ্ড যথাযথ নয়। জাতিসংঘের ওয়েবসাইটে প্রকাশিত এক বিবৃতিতে তিনি এমন মন্তব্য করেন।

তিনি আরো বলেন ‘যারা এই ধরনের ঘৃণ্য কাজ করে তাদেরকে এই কঠোর শাস্তি দেওয়া সন্তোষজনক হতে পারে, তবে আমাদের নিজেদের অবশ্যই আইনটি লঙ্ঘন করা উচিত নয়।’

বাংলাদেশ, ভারত, আলজেরিয়া, মরক্কো, নাইজেরিয়া, পাকিস্তান, তিউনেশিয়াসহ পৃথিবীর বেশ কয়েকটি দেশ ধর্ষণ রীতিমতো মহামারী আকার ধারণ করায় এবং শাস্তি হিসেবে মৃত্যুদণ্ড নিয়ে আলোচনা শুরু হওয়ার পর ব্যাচলেট এই বিবৃতি দেন।

তিনি বলেন, ‘মৃত্যুদণ্ডের পক্ষে মূল যুক্তি দেওয়া হচ্ছে ধর্ষণ প্রতিরোধ করা-তবে প্রকৃতপক্ষে অন্য শাস্তির তুলনায় মৃত্যুদণ্ড অপরাধ বেশি প্রতিরোধ করে তার কোনো প্রমাণ নেই। বরং প্রমাণ রয়েছে, শাস্তির কঠোরতার তুলনায় এর নিশ্চয়তা অপরাধ প্রতিরোধ করে।‘

নারী নির্যাতন ও ধর্ষণ প্রতিরোধে নাইজেরিয়ার আইন সংশোধন করা হয়েছে। বাংলাদেশে রাষ্ট্রপতি ধর্ষণের জন্য মৃত্যুদণ্ড প্রবর্তনে নারী ও শিশু নির্যাতন (প্রতিরোধ) আইন সংশোধন করে একটি অধ্যাদেশ জারি করেছেন। পাকিস্তানের জনসাধারণ ফাঁসির আহ্বান জানিয়েছে। আরো অনেক দেশে মৃত্যুদণ্ডের আবেদন জানানো হয়েছে।

জাতিসংঘের এই কর্মকর্তা বলেন, অধিকাংশ দেশের ‘প্রধান সমস্যা হচ্ছে যারা যৌন সহিংসতার শিকার তারা প্রথম ধাপেই বিচার পাওয়ার সুযোগ নেই।’

অনলাইন।

Facebook Comments
এ জাতীয় আরো খবর

ফেসবুকে আমরা

স্বত্ব সংরক্ষিত © 2020 চুনারুঘাট
কারিগরি Chunarughat
Don`t copy text!