1. admin@chunarughat24.com : admin :
শনিবার, ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২১, ১২:৩১ পূর্বাহ্ন

হবিগঞ্জে শিল্পদূষণ নিয়ে গণশুনানি

আশরাফুল ইসলাম
  • সময় : রবিবার, ৬ ডিসেম্বর, ২০২০
  • ১৭২ বার পঠিত
হবিগঞ্জে শিল্পদূষণ নিয়ে গণশুনানি
ছবিঃ সংগ্রহ

আশরাফুল ইসলাম।। হবিগঞ্জ জেলার সদর উপজেলা, শায়েস্তাগঞ্জ ও মাধবপুর উপজেলাতে বিপুল সংখ্যক শিল্প প্রতিষ্ঠান গড়ে উঠেছে। ঢাকা সিলেট মহাসড়ক সংলগ্ন মাধবপুর উপজেলাতেই এসব শিল্প প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা বেশি। কোন ধরনের নিয়ম নীতির তোয়াক্কা না করে এসব এলাকার কৃষিজমিতে গড়ে উঠছে এসব শিল্পকারখানা। দিন দিন এসবের বিস্তৃতি ঘটছে। এসব শিল্পকারখানা স্থাপনের ফলে সমাজের একটা শ্রেণী লাভবান হলেও শিল্পদূষণে জনস্বাস্থ্য ও আর্থ-সামাজিক ও পরিবেশিক ক্ষেত্রে মারাত্মক প্রভাব ফেলছে। এর পরিপ্রেক্ষিতে ‘হবিগঞ্জে শিল্পদূষণ ও জনদূর্ভোগ নিরসনে করনীয়’ শীর্ষক গণশুনানির আয়োজন করে বাংলাদেশ পরিবেশ আইনবিদ সমিতি (বেলা)।

শনিবার (৫ ডিসেম্বর) হবিগঞ্জ শহরের রাজনগরস্থ জেলা শিল্পকলা একাডেমি মিলনায়তনে উক্ত গণশুনানি অনুষ্ঠিত হয়। উক্ত গণশুনানিতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন হবিগঞ্জের জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ কামরুল হাসান।

এতে বিশেষ অতিথি হিসেবে হবিগঞ্জের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আনোয়ার হোসেন, পরিবেশ অধিদপ্তর সিলেটের পরিচালক মোহাম্মদ এমরান হোসেন, হবিগঞ্জের সিভিল সার্জন ড. একেএম মোস্তাফিজুর রহমান, বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন (বাপা) হবিগঞ্জের সভাপতি অধ্যাপক ইকরামুল ওয়াদুদ।

গণশুনানি সভাপতিত্ব করেন বাংলাদেশ পরিবেশ আইনবিদ সমিতির (বেলা) প্রধান নির্বাহী সৈয়দা রিজওয়ানা হাসান। মূলপ্রবন্ধ উপস্থাপন করেন বেলার নেটওর্য়াক মেম্বার খাইরুল হোসেন মনু ও জালাল উদ্দিন রুমি।

এছাড়াও, গণশুনানীতে স্থানীয় ক্ষতিগ্রস্ত ও ভুক্তভোগী জনগণ, সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানের মালিকপক্ষ, সরকারি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা, সাংবাদিক, শিক্ষক, আইনজীবী, ব্যবসায়ী, সমাজকর্মী, পরিবেশকর্মী ও জনপ্রতিনিধিসহ সুশীল সমাজের প্রতিনিধিরা অংশগ্রহণ করেন।

বাংলাদেশ পরিবেশ আইনবিদ সমিতির (বেলা) পক্ষ থেকে শিল্পদূষণের প্রভাব, গৃহীত উদ্যোগ, বর্তমান অবস্থা, সুপারিশমালা নিয়ে আলোচনা করা হয়। হবিগঞ্জে গড়ে উঠা এসব শিল্পকারখানার ফলে পরিবেশ দূষণ, শব্দ দূষণ, জনস্বাস্থ্য, আর্থ-সামাজিক, কৃষি, শিক্ষা, মৎস্য সম্পদ, প্রাণী ও পশু সম্পদের ক্ষতি, প্রাকৃতিক সম্পদের অপরিকল্পিত এবং অবৈধ আহরণ বৃদ্ধি, বন, বাগান ও চা শিল্পের উপর ব্যাপক প্রভাব পড়েছে।

এছাড়াও দেশের আইন-আদালতকে উপেক্ষা করার প্রবণতা বৃদ্ধির আশংকা রয়েছে বলে বেলা’র পক্ষ থেকে জানানো হয়। এজন্য সরকারি উদ্যোগে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করে বিভিন্ন সময়ে জরিমানা আরোপ ও পরিবেশ সম্মতভাবে শিল্পপ্রতিষ্ঠান পরিচালনা করতেও নোটিশ প্রদান করা হয়েছে।

গণশুনানীতে বেলার সুপারিশমালায় ক্ষতিগ্রস্তদের ক্ষতিপূরণের দাবী জানানো, জরুরি ভিত্তিতে গ্রামাঞ্চল ও জলাভূমিগুলোকে দূষণ মুক্ত করা, বিভিন্ন এলাকায় যেসব শিল্প প্রতিষ্ঠান রয়েছে তাদের কার্যক্রমের মধ্য দিয়ে সামাজিক ও পরিবেশগত নেতিবাচক প্রভাব ফেলছে তাদের প্রত্যেককে জবাবদিহিতার আওতায় নিয়ে আসার কথাও উল্লেখ করা হয়।

আলোচনায় বক্তারা বলেন, শিল্পাঞ্চল এলাকায় আগে যেখানে জমিতে প্রতি বিঘা ৮ মন করে ধানের ফলন হতো, সেখানে এবছর প্রতি বিঘা মাত্র তিন মন ধান হয়েছে। এলাকার অনেক জমিতে ফসল হচ্ছে না। শাক-সবজি উৎপাদন হচ্ছে না। এলাকার নদী খালে এখন মাছ পাওয়া যায় না। গাছে পাখি বসে না।

পরিবেশ রক্ষা ও সংরক্ষনে জনসচেতনতা সৃষ্টির উপরও জোর দিয়েছেন মুক্ত আলোচনায় অংশগ্রহণকারী বক্তারা।

অনলাইন।



Facebook Comments
এ জাতীয় আরও খবর

ফেসবুকে আমরা

স্বত্ব সংরক্ষিত © 2020 চুনারুঘাট
কারিগরি Chunarughat
Don`t copy text!