1. admin@chunarughat24.com : admin :
সোমবার, ২৫ জানুয়ারী ২০২১, ০৫:২৯ অপরাহ্ন

অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার ভ্যাকসিনের অনুমোদন দিলো সরকার

রিমন মুক্তাদির
  • সময় : সোমবার, ৪ জানুয়ারি, ২০২১
  • ৬৬ বার পঠিত
অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার ভ্যাকসিনের অনুমোদন দিলো সরকার

রিমন মুক্তাদির।। যুক্তরাজ্য ও ভারতের পর অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার উদ্ভাবিত করোনার (কোভিড-১৯) ভ্যাকসিন জরুরি ব্যবহারের জন্য অনুমোদন দিয়েছে বাংলাদেশ। সোমবার (৪ জানুয়ারি) এই ভ্যাকসিনের অনুমোদন দেয় ওষুধ প্রশাসন অধিদপ্তর।

অক্সফোর্ডের ভ্যাকসিন আমদানিতে বেক্সিমকোকে অনাপত্তি বা এনওসি দেয়া হয়। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মেজর জেনারেল মাহবুবুর রহমান গণমাধ্যমের কাছে এই তথ্য নিশ্চিত করেন।

জানা যায়, সোমবার সন্ধ্যায় অক্সফোর্ডের তৈরি করোনার ভ্যাকসিন আমদানির অনুমোদন দেয় ওষুধ প্রশাসন অধিদপ্তর। এর আগে দুপুরে এনওসি চেয়ে আবেদন করে বেক্সিমকো।

এ বিষয়ে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মাহবুবুর রহমান বলেন, অক্সফোর্ডের ভ্যাকসিনের বিষয়ে নো অবজেকশন সার্টিফিকেট দেয়া হয়েছে। তারা চাইলে এখন ভ্যাকসিন আনতে পারবে।

ওষুধ প্রশাসনের এই অনুমোদনের ফলে ভারতের সেরাম ইনস্টিটিউট কর্তৃক দেশটিতে উৎপাদিত অক্সফোর্ডের ভ্যাকসিন বাংলাদেশে আনতে আর কোনো বাধা থাকছে না। তবে ভারত সরকারের নিষেধাজ্ঞার ফলে সেরাম ইনস্টিটিউটের ভ্যাকসিন রপ্তানি করতে পারবে না এমন খবরে উদ্বেগ তৈরি হয় বাংলাদেশে।

রপ্তানিতে নিষেধাজ্ঞার খবর নাকচ করে সেরাম’র জনসংযোগ কর্মকর্তা মায়াঙ্ক সেন সংবাদমাধ্যম বিবিসি’কে জানান, ভ্যাকসিন রপ্তানিতে নিষেধাজ্ঞার যে খবর প্রকাশিত হয়েছে, তা পুরোপুরি সঠিক নয়। কারণ তাদের ভ্যাকসিন রপ্তানির ওপর কোনো নিষেধাজ্ঞা নেই।

তবে কোম্পানিটি এখন অন্য দেশে ভ্যাকসিন রপ্তানির অনুমতি পাওয়ার প্রক্রিয়ার মধ্যে রয়েছে, যা পেতে কয়েকমাস পর্যন্ত সময় লেগে যেতে পারে বলে তিনি জানান। কিন্তু রপ্তানি শুরুর আগেই ভারত সরকারকে ১০ কোটি ভ্যাকসিন দেয়ার বিষয়ে সম্মত হয়েছে। কিন্তু এই মুহূর্তে তারা রপ্তানি করতে পারবে না, যেহেতু তাদের রপ্তানির অনুমতি নেই।

এদিকে ভারতের সেরাম ইনস্টিটিউটের সঙ্গে করা চুক্তি অনুযায়ীই অক্সফোর্ডের তৈরি করোনার (কোভিড-১৯) ভ্যাকসিন বাংলাদেশ পাবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক। ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এ বিষয়ে আশ্বস্ত করেছে বলেও জানিয়েছেন তিনি। ৪ জানুয়ারি, সোমবার এক সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানিয়েছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী জানান, ভ্যাকসিন পাওয়ার জন্য সরকার সকল প্রকার পদক্ষেপ সম্পন্ন করেছে। ভ্যাকসিনের দাম বাবদ অর্থ ছাড়ের বিষয়টিও চূড়ান্ত পর্যায়ে। এটা প্রায় ১২০ মিলিয়ন ডলার।

প্রসঙ্গত, জানুয়ারির শেষ দিকে বা আগামী মাসের শুরুতে সিরাম ইন্সটিটিউটের কাছ থেকে ৫০ লাখ ডোজ ভ্যাকসিন পাওয়ার কথা বাংলাদেশের। এজন্য ৬০০ কোটি টাকা অগ্রিম সিরামের অ্যাকাউন্টে গতকাল রবিবার জমা দেয়ার কথাও জানিয়েছে বাংলাদেশ সরকার। কিন্তু এর পরের দিনই ভ্যাকসিন রপ্তানিরতে নিষেধাজ্ঞা জারি করে ভারত সরকার।

অনলাইন।

Facebook Comments
এ জাতীয় আরও খবর

ফেসবুকে আমরা

স্বত্ব সংরক্ষিত © 2020 চুনারুঘাট
কারিগরি Chunarughat
Don`t copy text!