1. admin@chunarughat24.com : admin :
ভ্যাকসিন রপ্তানিতে নিষেধাজ্ঞা দিলো ভারত। অনিশ্চয়তার মুখে বাংলাদেশ
বৃহস্পতিবার, ২৪ জুন ২০২১, ১২:৪২ অপরাহ্ন
শিরোনাম :

ভ্যাকসিন রপ্তানিতে নিষেধাজ্ঞা দিলো ভারত। অনিশ্চয়তার মুখে বাংলাদেশ

শুহিনুর খাদেম
  • সময় : সোমবার, ৪ জানুয়ারি, ২০২১
  • ১৭২ বার পঠিত

শুহিনুর খাদেম।। অক্সফোর্ড ও অ্যাস্ট্রাজেনেকার তৈরি করোনাভাইরাসের (কোভিড-১৯) ভ্যাকসিন আপাতত রপ্তানি করবে না ভারত। কয়েক মাসের জন্য ভ্যাকসিন রপ্তানির ওপর তারা নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে। ফলে উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান সেরাম ইনস্টিটিউট নিষেধাজ্ঞা থাকা পর্যন্ত এই ভ্যাকসিন রপ্তানি করতে পারবে না।

গতকাল রবিবার (৩ জানুয়ারি) ভ্যাকসিনটি মানবদেহে প্রয়োগের চূড়ান্ত অনুমোদন দেয় ভারত সরকার। আর এদিনই ভ্যাকসিনটি সে দেশের বাইরে রপ্তানিতে নিষেধাজ্ঞা দেয়া হয়। অথচ এই ভ্যাকসিনটি ভারতে অনুমোদন পাওয়ায় বিষয়টি বাংলাদেশেকে আশার আলো দেখিয়েছিলো। স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক দিন দুয়েক আগেই জানিয়েছিলেন, জানুয়ারিতেই হয়তো ভ্যাকসিনটি পেতে পারে বাংলাদেশ।

জানা যায়, এ বিষয়ে বার্তা সংস্থা অ্যাসোসিয়েটেড প্রেসকে (এপি) সেরাম ইনস্টিটিউটের প্রধান নির্বাহী আদর পুনাওয়ালা বলেছেন, ‘রবিবার ভারতের নিয়ন্ত্রণ সংস্থা তাদের ভ্যাকসিনের জরুরি অনুমোদন দিয়েছে। তবে শর্ত হচ্ছে ভারতের সাধারণ মানুষের নিরাপত্তা নিশ্চিত করার জন্য সেরাম ইনস্টিটিউট ভ্যাকসিন রপ্তানি করতে পারবে না। আমরা এ মুহূর্তে শুধু ভারত সরকারকে ভ্যাকসিন সরবরাহ করতে পারবো।’

এছাড়া সরকারি নির্দেশনায় টিকা মজুদ না করারও উল্লেখ রয়েছে বলেও জানান তিনি।

সেরাম ইনস্টিটিউটের প্রধান নির্বাহী আদর পুনাওয়ালা আরো বলেন, ‘ভারতের অভ্যন্তরীণ বাজারে ভ্যাকসিন বিক্রি করা থেকেও সেরামকে বিরত থাকতে বলা হয়েছে।’

পুনাওয়ালার বরাত দিয়ে এপি জানায়, আপাতত আগামী কয়েক মাসের জন্য ভ্যাকসিনটি রপ্তানিতে অনুমতি দেবে না ভারত। দেশটির নাগরিকরা যাতে যথাযথভাবে ভ্যাকসিন পায় তা নিশ্চিত করতেই সরকার এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছে বলেও জানান তিনি।

ভারতের এমন সিদ্ধান্তের কারণে বাংলাদেশে শিগগিরই করোনার ভ্যাকসিন পাওয়া নিয়ে অনিশ্চয়তা তৈরি হলেও এ বিষয়ে বাংলাদেশ সরকার এখনো আনুষ্ঠানিকভাবে কিছু জানে না বলে একটি সংবাদমাধ্যমে বলেছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. একে আব্দুল মোমেন।

বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী জানিয়েছেন, স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের কাছে তারা বিষয়টি জানতে চেয়েছেন।

অথচ ভ্যাকসিন সরবরাহ নিয়ে গত নভেম্বরের শুরুতে বাংলাদেশের বেক্সিমকো ফার্মাসিউটিক্যালসের সাথে চুক্তি করেছিলো ভারতের সেরাম ইনস্টিটিউট।

সেই চুক্তি অনুযায়ী, অক্সফোর্ডের তৈরি কোভিডশিল্ড টিকার ৩ কোটি ডোজ দেয়ার কথা সেরামের। বেক্সিমকোর মাধ্যমে প্রথমধাপের ছয় মাস, প্রতি মাসে ৫০ লাখ ডোজ টিকা দেয়ার পরিকল্পনা করেছিলো সেরাম।

এছাড়াও ২০২১ সালের ডিসেম্বরের মধ্যে ভ্যাকসিনের ২০ কোটি থেকে ৩০ কোটি ডোজ টিকা বাংলাদেশকে দেয়ার কথা ছিলো ভারতের।

অনলাইন।

Facebook Comments
এ জাতীয় আরো খবর

ফেসবুকে আমরা

স্বত্ব সংরক্ষিত © 2020-2021 চুনারুঘাট
কারিগরি Chunarughat
Don`t copy text!