1. admin@chunarughat24.com : admin :
দেশে সার্বিক করোনা পরিস্থিতির উন্নতি: জট খুলছে টিকা সমস্যার
শনিবার, ০৮ মে ২০২১, ০৩:৪৬ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
‘চীনের নিয়ন্ত্রণহীন রকেট নামিয়ে আনার পরিকল্পনা নেই যুক্তরাষ্ট্রের’ ২০ মে ‘চা শ্রমিক দিবস’ ঘোষণাসহ ১০ দফা দাবীতে স্মারকলিপি প্রদান শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস আজ ভারী বৃষ্টিপাতে কুশিয়ারাসহ উত্তর-পূর্বাঞ্চলের প্রধান সব নদীর পানি বৃদ্ধি পাবে সোহরাওয়ার্দি উদ্যানের গাছ কাটা বন্ধে আদালতের নোটিশ জাতীয় অধ্যাপক হিসেবে নিয়োগ পেয়েছেন তিনজন বিশিষ্ট ব্যক্তি চুনারুঘাটে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় দুই বন্ধু আহত সিলেট মেরিন একাডেমীর যাত্রা শুরু: উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী চুনারুঘাটে পুলিশের ওপর হামলা, আসামী ছিনতাই চিকিৎসার্থে খালেদা জিয়ার বিদেশ যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে

দেশে সার্বিক করোনা পরিস্থিতির উন্নতি: জট খুলছে টিকা সমস্যার

চুনারুঘাট
  • সময় : রবিবার, ২ মে, ২০২১
  • ১০৮ বার পঠিত
দেশে সার্বিক করোনা পরিস্থিতির উন্নতি: জট খুলছে টিকা সমস্যার

দেশে করোনা পরিস্থিতির সার্বিক উন্নতি হয়েছে। করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ে বিপর্যস্ত দেশ এপ্রিলে সবচেয়ে বেশি মৃত্যু ও সংক্রমণ দেখেছে।

পাশাপাশি প্রায় অর্ধমাস ধরে চলা লকডাউনে অনেকটা কমে এসেছে মৃত্যু ও সংক্রমণ। সম্প্রতি ২০ শতাংশের ওপরে চলে যাওয়া সংক্রমণ বর্তমানে ১০ শতাংশের নিচে নেমেছে।

বর্তমানে দৈনিক সংক্রমণ নেমেছে দুহাজারের নিচে। দৈনিক মৃত্যুও ছাড়িয়েছিল শ’য়ের কোঠা। বর্তমানে তা প্রায় অর্ধেকে নেমে এসেছে।

তবে এখনো প্রতিদিন গড়ে ৫০ জনের বেশি মানুষের মৃত্যু হচ্ছে করোনায়।

এ পরিস্থিতিতে হাসপাতালগুলোর ওপর যে মারাত্মক চাপ তৈরি হয়েছিলো তা কিছুটা প্রশমিত হয়েছে। যদিও এখন যথেষ্ট করোনা রোগী চিকিৎসা নিচ্ছেন।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক রোববার (২ মে) স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সুবর্ণ জয়ন্তীর অনুষ্ঠানে দাবি করেছেন, করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ে সংক্রমণ ও মৃত্যু অনেক বেড়ে গেলেও বর্তমানে তা অনেক কমে এসেছে।

অন্য দেশের তুলনায় তা নিয়ন্ত্রণে বলেও দাবি করেন তিনি। আবারো মানুষ অসাবধান হলে করোনার তৃতীয় ঢেউ অপেক্ষা করছে বলে সতর্কও করে দেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী।

এদিকে টিকা সংকট এখনো কাটেনি বাংলাদেশের। তবে, রাশিয়া ও চীনের টিকার অনুমোদনের পর এ ক্ষেত্রে একটা বড় অগ্রগতি হয়েছে।

গত ২৬ জুন রাশিয়ার স্পুৎনিক- ভি টিকার অনুমোদন দেয় ওষুধ প্রশাসন। এছাড়া ২৯ এপ্রিল চীনের সিনোফার্মার টিকারও অনুমোদন দেয় বাংলাদেশ।

এর আগের দিন ২৮ মার্চ অর্থনৈতিক বিষয় সম্পর্কিত মন্ত্রিসভা কমিটি রুশ ও চীনা টিকা বাংলাদেশে উৎপাদনের অনুমোদন দেয়। এটি একটি খুব বড় অগ্রগতি।

সরকার আরো আগে এ উদ্যোগ নিলে দেশের মানুষ উপকৃত হতো বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।

গত সপ্তাহে চীনের প্রতিরক্ষামন্ত্রী ওয়ে ফেং হ্য’র বাংলাদেশ সফরের সময়ও টিকাসহ সার্বিক সহযোগিতার বিষয়ে দুদেশের মতৈক্য হয়েছে।

চলতি মে মাসের মধ্যে রুশ স্পুৎনিক-ভি টিকার ৪০ লাখ ডোজ দেশে পৌঁছবে।

এছাড়াও, চীন উপহার হিসেবে যে ৫ লাখ ডোজ টিকা দিয়েছে তা মে’র প্রথমার্ধেই পৌঁছে যাওয়ার কথা।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক এ বি এম খুরশীদ আলম জানিয়েছেন, মে’র প্রথম সপ্তাহেই ২১ লাখ ডোজ টিকা পেতে যাচ্ছে বাংলাদেশ। এর মধ্যে ২০ লাখ আসবে ভারতের সেরাম ইনস্টিটিউট থেকে।

কিন্তু সেরাম থেকে কীভাবে টিকা আসবে তা স্পষ্ট নয়। ভারত টিকা রপ্তানি বন্ধ করেছে এবং বাংলাদেশ টিকা পাচ্ছে না- এটা ছিল সবশেষ খবর।

টিকার তদবির আর হুমকি সামাল দিতে সেরামের প্রধান আদর পুনাওয়ালা দেশ ছেড়ে লন্ডনে আশ্রয় নিয়েছেন।

তাই কীভাবে স্বাস্থ্য ডিজি ২০ লাখ ডোজ টিকা পাওয়ার কথা বলেছেন তা বোধগম্য নয়।

সবশেষ রোববার স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সুবর্ণ জয়ন্তীর অনুষ্ঠানে খোদ স্বাস্থ্যমন্ত্রীও সেরামের টিকার বিষয়ে কোনো আশার কথা শোনাতে পারেননি।

তবে, রাশিয়া ও চীনের সঙ্গে সরকারের তরিৎ চুক্তি সম্পাদন সাধুবাদ পাওয়ার যোগ্য। এর ফলে টিকার দ্বিতীয় ডোজটি অন্তত জরুরি ভিত্তিতে নিশ্চিত করা যাবে বলে আশা করা যায়।

আর পর্যায়ক্রমে দুদেশ থেকে টিকা এলে একরম বন্ধ হয়ে যাওয়া টিকা কর্মসূচি পুনরায় চালু করা যাবে। আর রুশ ও চীনা টিকা বাংলাদেশে উৎপাদন শুরু হলে তো কথাই নেই। দেশের চাহিদা পুরণ করে তা রপ্তানিও করা সম্ভব হবে।

এমনই একটা কঠিন পরিস্থিতিতে চীন ও বাংলাদেশের দুটি উদ্যোগ সুধী মহলের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছে।

প্রথমটি হচ্ছে চীনের উদ্যোগে ‘ইমার্জেন্সি ভ্যাকসিন স্টোরেজ ফ্যাসিলিটি ফর কোভিড ফর সাউথ এশিয়া’ প্ল্যাটফর্ম।

২৭ এপ্রিল চীনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ওয়াং ই দক্ষিণ এশিয়ার ৫টি দেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের নিয়ে ভার্চুয়াল বৈঠকের আয়োজন করেন।

বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেনও এতে যোগ দেন। বৈঠকে আফগানিস্তান, নেপাল, পাকিস্তান ও শ্রীলঙ্কার পররাষ্ট্রমন্ত্রীরাও যোগ দেন।

বৈঠকে চীনের পক্ষ থেকে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ওয়াং ই পাঁচটি দেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের আশ্বাস দেন যে কোনো জরুরি প্রয়োজন মোকাবেলায় তার দেশ প্রতিবেশি দেশগুলোর পাশে থাকবে ।

ভারতকেও এ প্লাটফর্মে আমন্ত্রণ জানিয়েছে বেইজিং। এর আগে গত বছরও করোনা বিস্তার লাভ করলে চীন বাংলাদেশসহ বিভিন্ন দেশে মেডিকেল টিম ও চিকিৎসা সরঞ্জাম পাঠিয়ে দায়িত্বশীলতার পরিচয় দিয়েছে।

আর দ্বিতীয় উদ্যোগটি ছোট হলেও তাৎপর্যপূর্ণ। বাংলাদেশ প্রতিবেশি ভারতের প্রতি সহযোগিতার হাত বাড়িয়েছে।

করোনা মোকাবেলায় ভারতে চিকিৎসা সরঞ্জাম ও ওষুধ পাঠাচ্ছে ঢাকা।

ভারতের কাছ থেকে প্রাপ্য টিকা না পেলেও বাংলাদেশ সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে উদারতার নজীর স্থাপন করেছে। বিপদে প্রতিবেশির মুখের ওপর দরজা বন্ধ করা যায় না-এই হচ্ছে এর অন্তর্নিহিত তাৎপর্য।

অনলাইন।

Facebook Comments
এ জাতীয় আরো খবর

ফেসবুকে আমরা

স্বত্ব সংরক্ষিত © 2020-2021 চুনারুঘাট
কারিগরি Chunarughat
Don`t copy text!